করোনায় ক্ষতিগ্রস্তদের আর্থিক সহায়তা প্রদান কার্যক্রম উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী


করোনা ভাইরাসের কারণে ক্ষতিগ্রস্থ দরিদ্র ও অসহায় মানুষকে মোবাইল ব্যাংকিং পরিষেবার মাধ্যমে দ্বিতীয় পর্যায়ে আর্থিক সহায়তা প্রদান কার্যক্রমের শুভ উদ্বোধন করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

রোববার (২ মে) সকাল সাড়ে ১০টায় গণভবন থেকে চট্টগ্রাম, জয়পুরহাট ও ভোলা জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের সাথে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে সংযুক্ত হয়ে তিনি এ কার্যক্রমের শুভ সুচনা করেন।

চট্টগ্রাম জেলার এ প্রান্তে জেলা প্রশাসক কার্যালয়ে ১০ জন উপকারভোগী উপস্থিত থেকে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীকে মোবাইল ব্যাংকিং পরিষেবার মাধ্যমে প্রাপ্ত সুবিধার কথা জানান। এ কার্যক্রমের আওতায় চট্টগ্রামে ৯৯ হাজার ৯৭৭ জন উপকারভোগী প্রত্যেকে ২ হাজার ৫’শ টাকা করে পেতে যাচ্ছে। রোববার চট্টগ্রামের ২২ হাজার পরিবার মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর ঈদ উপহার হিসেবে ২ হাজার ৫’শ টাকা করে পেয়েছেন। বাকি পরিবারগুলো পর্যায়ক্রমে আগামী ৩ দিনের মধ্যে উপহার হিসেবে দেয়া এ অর্থ পেয়ে যাবেন।

অনুষ্ঠানে চট্টগ্রাম জেলা প্রান্ত থেকে উপস্থিত ছিলেন সরকারের শিক্ষা উপমন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল এমপি, জাতীয় সংসদের হুইপ শামসুল হক চৌধুরী এমপি, সংসদ সদস্য মোছলেম উদ্দিন আহমদ, সংসদ সদস্য মোস্তাফিজুর রহমান চৌধুরী, চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের (চসিক) মেয়র বীর মুক্তিযোদ্ধা মোঃ রেজাউল করিম চৌধুরী, চট্টগ্রাম বিভাগীয় কমিশনার এ বি এম আজাদ এনডিসি, পুলিশের চট্টগ্রাম রেঞ্জ ডিআইজি মোঃ আনোয়ার হোসেন, সিএমপি কমিশনার সালেহ মোহাম্মদ তানভীর, জেলা পুলিশ সুপার এস.এম রশিদুল হকসহ, রাজনৈতিক-ব্যবসায়িক নেতৃবৃন্দ, গণমাধ্যমকর্মী ও বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার উপকারভোগী লোকজন।

গত ১৪ এপ্রিল হতে সাম্প্রতিক লকডাউনে সাময়িক কর্মহীন হয়ে পড়া বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষ যেমন পরিবহন শ্রমিক, দিনমজুর, রিক্সা ভ্যান চালক, নির্মাণ শ্রমিক, চর্মকার, নরসুন্দর, হিজড়া, বেদে সম্প্রদায়, প্রতিবন্ধী ও বস্তিবাসী নিম্ন আয়ের ২৬ হাজার ৮’শ পরিবারের মাঝে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর উপহার সামগ্রী চাল, ডাল, সয়াবিন তেল, চিনি, আলু, লবন, সাবান ইত্যাদি বিতরণ করা হয়েছে। এছাড়াও চট্টগ্রামের সম্মানিত সংসদ সদস্যগণ, রাজনৈতিক ও ব্যবসায়ী নেতৃবৃন্দও ত্রাণ কাজে সমানভাবে অংশগ্রহণ করছেন। নিম্ন-মধ্যবিত্ত ও মধ্যবিত্ত যে সকল পরিবার প্রকাশ্যে ত্রাণ চাইতে কুণ্ঠাবোধ করেন তারা জেলা প্রশাসনে এসএমএস বা ফোন করলেও রাতের বেলায় বাড়ি গিয়ে এসব উপহার সামগ্রী/খাদ্য দ্রব্য পৌঁছে দিচ্ছেন জেলা প্রশাসনের টিম।

লকডাউন ও স্বাস্থ্যবিধি নিশ্চিতকরনের জন্য জেলা প্রশাসন দিনরাত কাজ করে যাচ্ছে। পাশাপাশি জনগণের মাঝে বিনামূল্যে মাস্ক বিতরণ করছে। কোভিড-১৯ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ কাজের জন্য আমাদের কন্ট্রোল রুম ২৪ ঘন্টা চালু থাকে বলে জানান  চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ মমিনুর রহমান।

নিজস্ব প্রতিবেদক, ফোকাস চট্টগ্রাম ডটকম

0Shares