চট্টগ্রামে করোনায় আরো সাতজনের মৃত্যু: নতুন আক্রান্ত ২৫২ জন


চট্টগ্রামে করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে ২৪ ঘণ্টায় সাতজনের মৃত্যু হয়েছে। এর আগের দিনও একই সংখ্যক মানুষের মৃত্যু হয়েছিল। তবে কম নমুনা পরীক্ষায় সংক্রমণও কমেছে। আগের দিন ৩০২ জন আক্রান্ত হলেও গত ২৪ ঘণ্টায় আক্রান্ত হয়েছে ২৫২ জন। মৃতদের মধ্যে ৫ জন নগরের আর উপজেলার ২ জন। আক্রান্তদের মধ্যে নগরের ২৩৫ আর উপজেলার ১৭ জন রয়েছে।

রোববার (১৮ এপ্রিল) চট্টগ্রাম সিভিল সার্জন কার্যালয় থেকে প্রকাশিত প্রতিবেদনে এ তথ্য জানা যায়।

এদিকে করোনায় আক্রান্ত রিপোর্ট আসার একদিনের মধ্যেই চট্টগ্রাম কারাগারের এক হাজতির মত্যু হয়েছে। ২ হাজার হাজতি ধারণ ক্ষমতার এই কারাগারে বর্তমানে বন্দি আছে প্রায় সাড়ে সাত হাজার। এমন অবস্থায় করোনায় এক হাজতির মৃত্যুর বিষয় নিয়ে উদ্বেগ ছড়িয়েছে কারা অভ্যন্তরে।  যদিও জেল কর্তৃপক্ষের দাবি, মারা যাওয়া হাজতি আগে থেকেই যক্ষ্মা রোগী ছিলেন। সেই রোগের চিকিৎসা নিতে গিয়ে চট্টগ্রাম মেডিকেলে ভর্তি হন। সেখানেই করোনায় আক্রান্ত হয়ে রবিবার মারা যান।

চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ পরিদর্শক জহিরুল ইসলাম ভূইয়া বলেন, করোনা ওয়ার্ডে চিকিৎসাধীন অবস্থায় এক হাজতি রবিবার সকাল সাড়ে ৯টার দিকে মারা যান। তিনি গত ১০ এপ্রিল থেকে চট্টগ্রাম মেডিকেলে চিকিৎসাধীন ছিলেন।

কারা সূত্র জানায়, বি বাড়িয়ার সরাইল থানার শাহবাজপুর গ্রামের আব্দুর রহমান দুলালের ছেলে আব্দুর রহমান শুক্কুর বন্দর থানার একটি মাদক মামলায় গত ২৩ ফেব্রুয়ারি চট্টগ্রাম কারাগারে আসেন। তিনি গত ১০ এপ্রিল কারাগারের পদ্মা ভবনের ৩ নম্বর ওয়ার্ডে হঠাৎ অসুস্থ হয়ে পড়লে তাকে কারা হাসপাতালে নেয়া হয়। সেখানে তার জ্বর ও দুর্বলতা জনিত কারণে উন্নত চিকিৎসার জন্য রাত ১২টার পর চট্টগ্রাম মেডিকেলে পাঠায় কারা চিকিৎসকরা। সেখানে পরীক্ষা শেষে তাকে ১৬ নম্বর ওয়ার্ডে ভর্তি করানো হয়। পরে শ্বাসকষ্ট দেখা গেলে তার করোনা পরীক্ষা করা হয়। গতকাল ১৭ এপ্রিল তার করোনা পজিটিভ রিপোর্ট এলে তাকে ৩ নম্বর করোনা ওয়ার্ডে নেয়া হয়। সেখানেই একদিন পর রোববার সকালে তিনি মারা যান।

চট্টগ্রাম সিভিল সার্জনের দেয়া ওই প্রতিবেদনে জানা গেছে, ২৪ ঘণ্টায় চট্টগ্রামে ৯৫৮ টি নমুনা পরীক্ষায় নতুন করে ২৫২ জন করোনা আক্রান্ত হয়। এ নিয়ে মোট আক্রান্ত ৪৬ হাজার ৯৩৪ জন। নতুন ৭ জনের মৃত্যুসহ মোট মৃতের সংখ্যা দাঁড়ালো ৪৫৯ জনে। এদিন ছয়টি ল্যাবে করোনার নমুনা পরীক্ষা হলেও তিনটিতে করোনার নমুনা পরীক্ষা হয়নি।  এর মধ্যে বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব ট্রপিক্যাল অ্যান্ড ইনফেকশাস ডিজিজেসে (বিআইটিআইডি) ল্যাবে ৩৪৩টি নমুনা পরীক্ষা করে করোনা শনাক্ত হয় ৭০ জন। চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ (চমেক) ল্যাবে ১০৩টি নমুনা পরীক্ষা করে ৩৮ জন ও  ৯৪টি নমুনা পরীক্ষা করে ৩০ জনের শরীরে করোনা ভাইরাস শনাক্ত হয়েছে। জেনারেল হাসপাতালের রিজিওনাল টিবি রেফারেল ল্যাবরেটরিতে (আরটিআরএল) ৬১টি নমুনা পরীক্ষায় করোনা শনাক্ত হয় ৩৫ জনের।  বেসরকারি ইম্পেরিয়াল হাসপাতালের ল্যাবে ৫৪ নমুনা পরীক্ষায় ২ জন, শেভরন ক্লিনিক্যাল ল্যাবরেটরিতে ৩৫৩ টি নমুনা পরীক্ষায় করোনা শনাক্ত হয় ৮৮ জনের এবং চট্টগ্রাম মা ও শিশু হাসপাতালে ৪৪ জনের নমুনায় ১৯ জনের করোনা শনাক্ত হয়। এদিন কক্সবাজার মেডিক্যাল কলেজ ল্যাব, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় ও  চট্টগ্রাম ভেটেরিনারি অ্যান্ড অ্যানিম্যাল সায়েন্সেস বিশ্ববিদ্যালয় (সিভাসু) ল্যাবে কোনও নমুনা পরীক্ষা করা হয়নি।

নিজস্ব প্রতিবেদক, ফোকাস চট্টগ্রাম ডটকম

0Shares